আনন্দে হই চই

আনোয়ারুল হক নূরী

বুধবার , ২০ ডিসেম্বর, ২০১৭ at ১০:৫৪ পূর্বাহ্ণ
36

তোমরা বলো, ‘আমি নাকি মার আঁচলে থাকি’

দূর নীলিমার মায়াবী রঙ চোখের পাতায় মাখি।

মা, পাখি আর আকাশ নিয়ে পদ্য বারো মাস,

এসব ছাড়া নুতন কিছু করবো কী আর চাষ!

চাই না আমি স্বপ্নরঙিন সূর্য হাসির ভোর ।

মায়ের মুখের হাসির গোলাপ নিবিড় স্নেহ ডোর।

চাই না আমি নীল নোয়ানো আকাশ নামের ছাতা ।

মেঘ পাহাড়ে লুকিয়ে থাকা চাঁদ বুড়িটার মাথা ।

চাই না এ সবতাই তো ঘরে বন্দী হয়ে রই।

বাইরে কোথাও গিয়ে আমি করি না হই চই ।

দুধকুয়াশার শিশ মহলে জল টুপ টুপ টুপ ।

কান পাতি না মন দেই না এক্কেবারে চুপ ।

মোবাইল ফোন আর রঙিন টিভি দুচোখ জুড়ে ভাসে

হাল ফ্যাশনের খেলনাপাতি সারাটা দিন পাশে।

মন যায় না, মন ছোঁয় না নীলাকাশের রঙে

পড়ে থাকি ফেইস বুকের নিরেট কথার ঢঙে ।

মন বলাকা বনবাদাড়ে যায় না উড়ে ভেসে

অমনি দুয়ার খুলে দিয়ে মা বলল হেসে ,

লক্ষী খোকা হদ্দ বোকা থাকিস না নিশ্চুপ,

নীলাকাশে দেখ না খোকা চাঁদ কি অপরূপ!

আধখানা চাঁদ ভাঙা কাঁকন কে হারাল কে?

তারায় আঁকা জোছনা শাড়ি আমায় এনে দে।

আমার খোকার চোখে আছে স্বপ্ন গোলাপ ফুল

সাগর নদী পাড়ি দিয়ে আনবে স্বর্ণ দুল।’

এই বলে মা স্নেহের হাতটি বুলিয়ে দিল যেই,

অভিমানের ফুটল গোলাপ, খুশিতে ধেই ধেই ।

তোমরা বল ‘আমি কি আর মা’র আঁচলের পাখি?

ওরাই আমায় সারাটা দিন করছে ডাকাডাকি।

কেমনে বলো ওদের ছাড়া খোকন সোনা হই

মনকাননে করছে ওরা আনন্দে হই চই।

x