চবিতে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ আহত ৫

চবি প্রতিনিধি

বুধবার , ২৮ মার্চ, ২০১৮ at ৪:০০ পূর্বাহ্ণ
185

তুচ্ছ ঘটনার জেরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৫ জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৪ জনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) পাঠানো হয়েছে এবং বাকি একজনকে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। গতকাল বিকেল ৪টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সোহরাওয়ার্দী হলের সামনে সিক্সটি নাইন ও ভিএক্স গ্রুপের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেনবিশ্ববিদ্যালয় ইতিহাস বিভাগের ২০১৫১৬ শিক্ষাবর্ষের রিয়াজ রাফি (সিক্সটি নাইন), একই বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী তারেক ইকবাল (ভিএক্স), গণিত ২০১২১৩ শিক্ষাবর্ষের সাজিদ চৌধুরী (সিক্সটি নাইন), পরিসংখ্যান ২০১৬১৭ শিক্ষাবর্ষের কামাল উদ্দিন (ভিএক্স) ও বাংলা ২০১৭১৮ শিক্ষাবর্ষের নেয়ামত উল্লাহ (ভিএক্স)। এর মধ্যে প্রথম চারজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন চবি মেডিকেল সেন্টারের চিকিৎসক শান্তনু মহাজন।

জানা যায়, গত সোমবার চশমা নিয়ে দুই বন্ধু রুবেল ও সা’দের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এর মধ্যে রুবেল সিক্সটি নাইন গ্রুপের ও সা’দ ভিএক্স গ্রুপের অনুসারী। এ ঘটনার খবর শুনে ঐদিন দুপুরের দিকে স্টেশন চত্বরে সিক্সটি নাইন গ্রুপের কর্মীরা সা’দকে মারধর করে। ওই ঘটনার জের ধরে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সোহরাওয়ার্দী হলে রুবেলকেও মারধর করে ভিএক্স গ্রুপ। এর জেরে বিকেল ৪টার দিকে দুই গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় ভিএক্স গ্রুপ সোহরাওয়ার্দী হলের ভেতর থেকে এবং সিক্সটি নাইন গ্রুপ হলের বাহির থেকে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এছাড়া লাঠিসোটা, লোহার রড ও রামদা নিয়ে উভয় পক্ষ একে অপরকে ধাওয়া দেয়। এতে ৫ জন আহত হয়। পরে পুলিশ এসে মাইকিং করে উভয় পক্ষকে সরিয়ে দিলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

এ বিষয়ে ঘটনাস্থলে থাকা হাটাহাজারী থানার উপপরিদর্শক পরেশ চন্দ্র সিকদার সাংবাদিকদের জানান, কী নিয়ে ঝামেলার সৃষ্টি তা আমাদের জানা নেই। পরে আমরা মাইকিং করে উভয় পক্ষকে সতর্ক করলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

এ বিষয়ে সিক্সটি নাইন গ্রুপের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি মনসুর আলম মুঠোফোনে আজাদীকে জানান, ‘জুনিয়রদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি থেকে ঝামেলার সৃষ্টি হয়েছে। এখন সিনিয়র নেতাদের সাথে বসে বিষয়টি মিমাংসার চেষ্টা চলছে।’ এসময় তিনি নিজ কর্মীকে মারধরের ঘটনায় সুষ্ঠ তদন্ত চেয়ে প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ করবেন বলেও উল্লেখ করেন।

একই বিষয়ে ভিএক্স পক্ষের নেতা ও শাখা ছাত্রলীগের সাবেক উপদপ্তর সম্পাদক মিজানুর রহমান বিপুল আজাদীকে বলেন, ‘জুুনিয়রদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি ও কথাকাটাকাটি থেকে ঝামেলা হয়েছে। আমরা বিষয়টি মিমাংসা করার চেষ্টা করছি।’

জানতে চাইলে চবি প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী আজাদীকে বলেন, ‘ঝামেলার খবর শুনে আমরা ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। যে কোনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ক্যাম্পাসে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।’

x