চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেয়ায় হামলা!

কাপ্তাই রাস্তার মাথায় সিএনজি টেক্সি ভাঙচুর, চালককে মারধর

আজাদী প্রতিবেদন

শুক্রবার , ৯ মার্চ, ২০১৮ at ৫:০১ পূর্বাহ্ণ
69

মোহরা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা জসিম উদ্দিনের মালিকানাধীন একটি সিএনজি ট্যাক্সি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। বেদম প্রহার করা হয়েছে ট্যাক্সির চালককেও। চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে কথা বলায় গতকাল বৃহস্পতিবার নগরীর কাপ্তাই রাস্তার মাথা এলাকায় এই হামলার ঘটনা ঘটে। অভিযোগ পাওয়া গেছে, পুলিশও চাঁদাবাজদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে।

মোহরা ওয়ার্ড আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, আমি সবসময় চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকি। তিনি বলেন, কাপ্তাই রাস্তার মাথা এলাকায় চাঁদাবাজি বন্ধে জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আমি চিঠি দিয়েছি। আর এটাই আমার কাল হয়েছে।

তিনি জানান, গতকাল বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে তার মালিকানাধীন চট্টমেট্রো ১১৯৮৫৬ নম্বরের সিএনজি ট্যাক্সিটি কাপ্তাই রাস্তার মাথা এলাকায় গেলে এক চাঁদাবাজ প্রথমে লাঠি দিয়ে গাড়িতে আঘাত করে। এরপর চাঁদা দাবি করে। চালক মো. দুলাল চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে লাঠির ভয় দেখিয়ে ট্যাক্সি এক পাশে দাঁড় করানোর নির্দেশ দেয়। চালক সেখান থেকে তার ট্যাক্সি নিয়ে চলে যাওয়ার চেষ্টা করলে হোসেন, হাসান ও মাহবুবসহ কয়েকজন ট্যাক্সির উপর হামলা চালায়। গাড়ি ভাঙচুর করে। চালক দুলালকে বেদম প্রহার করে। পুলিশ তাদের সবাইকে চান্দগাঁও থানায় নিয়ে আসে। খবর পেয়ে তিনি (জসিম) থানায় ছুটে যান। থানায় গিয়ে দেখেন হামলাকারী মাহাবুব ডিউটি অফিসারের সামনে বসে অভিযোগ লিখছেন। আর তাদের হামলায় আহত চালক দুলালকে লকআপে আটকে রাখা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে তিনি নগর আ.লীগের এক জ্যেষ্ঠ নেতার সহযোগিতায় চালককে মুক্ত করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠান। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সম্প্রতি তিনি চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করার কারণে পুলিশ তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে চাঁদাবাজদের দ্বারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে। নয়তো তারা এত দুঃসাহস দেখাতে পারতো না।

কাপ্তাই রাস্তা মাথা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই কাজলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিনি শুনেছেন একজন চালক স্ক্রডাইভার দিয়ে কয়েকজনের উপর হামলা চালিয়েছে। তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজদের পক্ষ নেয়ার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিনি কাপ্তাই রাস্তার মাথায় ডিউটি করলেও সেখানে কারা চাঁদাবাজি করে তা তার জানা নেই। এরপরও আহত ব্যক্তিকে কেন লকআপে ঢুকানো হল তার কোনো সদুত্তর দিতে পারেন নি এসআই কাজল।

x