ডা. ছৈয়দুর রহমানকে ছাড়া স্বাধীনতার ইতিহাস অপূর্ণাঙ্গ থেকে যাবে

সংবর্ধনা গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে চবি উপাচার্য

মঙ্গলবার , ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ at ৪:৩৫ পূর্বাহ্ণ
33

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, ডা. ছৈয়দুর রহমান চৌধুরীকে ছাড়া বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস অপূর্ণাঙ্গ রয়ে যাবে। তিনি গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে চট্টগ্রামে ৬ দফা আন্দোলনের অগ্রণী সংগঠক, শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. ছৈয়দুর রহমান চৌধুরী সংবর্ধনা গ্রন্থের প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন।

. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ডা. ছৈয়দুর রহমান একজন লড়াকু সৈনিক, একজন জীবন্ত কিংবদন্তী। বহুমাত্রিক গুণাবলী সমৃদ্ধ ডা. ছৈয়দুর রহমান স্বাধীনতার চেতনাকে ধারণ করার পথ প্রদর্শন করে যাচ্ছেন। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ ছিলেন। ছৈয়দুর রহমানের চৈতন্য গলির বাসাতেই জাতির জনকের উপস্থিতিতে আগরতলা মামলার ঘটনা ও স্বাধীনতা সংগ্রামের পরিকল্পনা হয়েছিল। তিনি ১৯৪৮ সালে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ডা. ছৈয়দুর রহমান অনেক সামাজিক সমাজ সেবামূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন। তিনি কখনো দলীয় পদপদবী ও অর্থের জন্য লালায়িত ছিলেন না। তিনি যে পর্যায়ের চিকিৎসক ছিলেন, যদি সমাজসেবার ব্রতি না হতেন তাহলে অনেক ধনী হতে পারতেন। ডা. ছৈয়দুর রহমান সংবর্ধনা গ্রন্থ বইটি পড়লেই স্বাধীনতা সংগ্রামের অনেক অজানা বিষয় জানা যাবে।

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক মেজর জেনারেল (অব.) আবদুল ওয়াদুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেনডা. ছৈয়দুর রহমান চৌধুরী সংবর্ধনা গ্রন্থের সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধাসাংবাদিক নাসিরুদ্দিন চৌধুরী। সংস্কৃতি কর্মী দিলরুবা খানমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী আবৃত্তি করেন আবৃত্তিকার সেলিম জাহাঙ্গীর।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ডা. ছৈয়দুর রহমান চৌধুরীর সহধর্মীনি চেমন আরা বেগম, প্রকৌশলী মেজর জেনারেল (অব.) আবদুল মতিন, মুক্তিযোদ্ধা মো. হারিছ, মুক্তিযোদ্ধা নুর মোহাম্মদ চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগ সহসভাপতি নঈমুদ্দিন চৌধুরী, জাতীয় শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শফর আলী, একেএম আবু বক্কর চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর আহমদ।

বক্তব্য দেননগর আওয়ামী লীগ নেতা জামশেদুল আলম চৌধুরী, দীপংকর চৌধুরী কাজল, কলামিস্ট অধ্যাপক মাছুম চৌধুরী, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, বেদারুল আলম চৌধুরী, গৌরাঙ্গ ঘোষ, নওশাদ চৌধুরী রানা ও ডা. ছৈয়দুর রহমান চৌধুরীর কনিষ্ঠ পুত্র সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী, তাপস হোড়, মাইনুদ্দিন চৌধুরী প্রমুখ।

স্বাগত বক্তব্যে সাংবাদিক নাসিরুদ্দিন চৌধুরী বলেন, ডা. ছৈয়দুর রহমান চৌধুরী সম্পর্কে না জানলে স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস অজানা থেকে যাবে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

x