দ্বিতীয় ইনিংসের সেঞ্চুরিকেই এগিয়ে রাখলেন মোমিনুল

ক্রীড়া প্রতিবেদক

সোমবার , ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ at ৫:০৭ পূর্বাহ্ণ
34

বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি করে ইতিহাসে প্রবেশ করেছেন মোমিনুল হক। প্রথম ইনিংসে নিজের সামর্থ্যের প্রমাণ দিয়েছেন ঝকঝকে ১৭৬ রান করে। আবার দ্বিতীয় ইনিংসে ম্যাচ বাঁচিয়েছেন ১০৫ রান করে। তবে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান বেছে নিয়েছেন চট্টগ্রাম টেস্ট ড্রয়ে বড় অবদান রাখা দ্বিতীয় সেঞ্চুরিকে। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে গতকাল ম্যাচ শেষে মোমিনুল জানান, ‘দ্বিতীয় ইনিংসেরটা এগিয়ে রাখব। কারণ ওটা ম্যাচ বাঁচানো ইনিংস ছিলো। দ্বিতীয় ইনিংসটা আমি অনেক বেশি উপভোগ করেছি।’ মোমিনুল বললেন, বাজে সময়টেই তাকে পরিণত করেছে অনেক। শিখেছেন অনেক কিছু। দ্বিতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, কাউকে জবাব দিতে চাননি। একই কথা বললেন শেষ দিনে সেঞ্চুরির পরও। ‘কোনো ক্রিকেটারের পক্ষে এটা করা সম্ভব নয় যে টার্গেট করে নামব এটা করার পর ওটা করে দেখাব। আমার কাছে মনে হয় এটা ভুল ব্যাপার। কারণ ওভাবে পারা যায় না। আগে থেকেই ভাবতে হবে যে একশ করতে হবে, ওভাবে তো ভাবা যায় না।’ হাথুরুসিংহে কোচ থাকার সময় যে সময়টা তার অনুকূলে ছিল না, ক্যারিয়ারে বাজে সময় এসেছে, সেটি অবশ্য অস্বীকার করছেন না মোমিনুল। তবে বললেন, দুঃসময়ই তাকেই শিখিয়েছে এগিয়ে চলার মন্ত্র। ‘আমার কাছে মনে হয় আমার জীবনের জন্য ওই জিনিসটা খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আপনারা কীভাবে ভাবেন জানি না তবে আমার কাছে মনে হয় এটা আমার জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ওরকম হওয়ার কারণে হয়ত আমার মানসিকতার একটা বদল এসেছে, পরিশ্রমটা আরও বাড়ছে, অনেক চিন্তা ভাবনায় বদল এসেছে।’ টেস্টে দলের দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ভরসা হয়ে উঠেছেন মোমিনুল হক। ছয় টেস্ট সেঞ্চুরির চারটিই তিনি করেছেন দলের দ্বিতীয় ইনিংসে। বাঁহাতি এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান জানিয়েছেন, চাপের মধ্যেই বের হয়ে আসে তার সেরাটা। ৪৮ ইনিংসে ৬টি সেঞ্চুরি ও ১২টি ফিফটিসহ ৪৮.২০ গড়ে মুমিনুলের রান ২ হাজার ১২১। দলের দ্বিতীয় ইনিংসে ২২ ইনিংস ব্যাট করে চারটি করে ফিফটিসেঞ্চুরিসহ ৫১.৮৮ গড়ে বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানের রান ৯৩৪। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি করে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতা মোমিনুল চাপের মধ্যে মাথা ঠান্ডা রেখে এগিয়ে যাওয়ার কৌশল জানান। ‘চাপের মধ্যে খেলার সময়ে আপনি যদি চিন্তা করেন, পুরো দিন খেলবেন তাহলে কিন্তু কঠিন। আমি আর লিটন প্রথম সেশন থেকে যা করছিলাম তা হল, সেশন বাই বাই সেশন খেলা। প্রতিটি সেশনে এক ঘণ্টা, এক ঘণ্টা করে পরিকল্পনা করেছি।’ চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম মোমিনুলের পয়মন্ত ভেন্যু। এই মাঠে ১৩ ইনিংসে পাঁচবার ছুঁয়েছেন পঞ্চাশ, পাঁচবারই গেছেন তিন অঙ্কে। সেঞ্চুরি পাঁচটি, ফিফটি নেই একটিও। ‘আমার কাছে মনে হয় না যে, বিশেষ কোনো কারণ আছে। আমি এই মাঠে রান করি এমন কোনো চিন্তা করে মাঠে নামি না। গত দুই, তিন টেস্টে কিন্তু এই মাঠেই আমি রান পাইনি। এখানে এলেই হয়তো রান হয়ে যায়।’ চট্টগ্রামে ৭ টেস্টে ৬৩.২০ গড়ে মোমিনুলের রান ৮৬৯।

x