পূর্ণেন্দু দস্তিদার: আজীবন ত্যাগী ও বিপ্লবী

বুধবার , ৯ মে, ২০১৮ at ৫:৫২ পূর্বাহ্ণ
23

চট্টগ্রাম যুববিদ্রোহে মাস্টার দা সূর্যসেনের অন্যতম সহযোগী, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ পূর্ণেন্দু দস্তিদার আজীবন কাটিয়েছেন বিপ্লব আর মানব মুক্তির সংগ্রামে। সমাজ মনস্ক লেখক হিসেবেও তিনি খ্যাতিমান। আজ তাঁর ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী।

পূর্ণেন্দু দস্তিদারের জন্ম ১৯০৯ সালের ২০শে জুন চট্টগ্রামের পটিয়ায়। চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল থেকে মাধ্যমিক এবং চট্টগ্রাম কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে তিনি কলকাতার যাদবপুর ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ভর্তি হন ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংএ। ছাত্রাবস্থায়ই পুরোপুরি রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে পড়েন। ১৯৩০ সালে মাস্টার দা সূর্যসেনের নেতৃত্বে চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠনের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে কলকাতায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। দীর্ঘ দশ বছর বন্দি থাকার ফলে মেধাবী পূর্ণেন্দুর প্রকৌশল বিদ্যা পড়ায় ছেদ পড়ে। তবে জেল থেকেই তিনি ডিস্টিঙ্কশন সহ বি.এ এবং বি.এল ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৪০ সালে মুক্তি মেলে পূর্ণেন্দুর। যোগ দেন চট্টগ্রাম আদালতে। সেই সাথে রক্তে প্রবহমান রাজনীতির নেশাও তাড়িয়ে বেড়ায়। যুক্ত হয়ে পড়েন বাম রাজনীতির প্রক্রিয়ার সঙ্গে। দেশের মানুষের মুক্তি আন্দোলনে নিবেদিতপ্রাণ পূর্ণেন্দুর জীবনের বেশিরভাগ সময়ই কেটেছে কারাগারে। ব্যক্তিগত জীবনাদর্শ ও অভিজ্ঞতা থেকে বেশ কিছু সৃজনশীল গ্রন্থ রচনা করেছেন তিনি। এসবের মধ্যে রয়েছে: ‘স্বাধীনতা সংগ্রামে চট্টগ্রাম’, ‘কবিয়াল রমেশ শীল’, ‘বীরকন্যা প্রীতিলতা’ প্রভৃতি। অনুবাদ করেছেন চেখভ ও মোপাঁসার গল্প। ১৯৭১এর ৯ই মে তিনি প্রয়াত হন। আজীবন ত্যাগী, দেশব্রতী ও মুক্তির স্বপ্নে বিভোর পূর্ণেন্দু দস্তিদার বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ভারতীয় সীমান্তে যাবার পথে পথশ্রমে ক্লান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

x