প্রত্যাশা পূরণ করেছে আঞ্চলিক ভাষার অনুষ্ঠান

সাতদিন বাংলাদেশে টেলিভিশন চট্টগ্রাম

আয়শা আদৃতা

বৃহস্পতিবার , ১৭ মে, ২০১৮ at ৫:২৯ পূর্বাহ্ণ
13

চট্টগ্রামের টেলিভিশন হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় একটা অনুষ্ঠানের প্রত্যাশা ছিল। দর্শকদের এ প্রত্যাশার কথা এ আলোচনায় বেশ কয়েকবার আলোকপাত করা হয়েছিল। দীর্ঘদিন পর হলেও কর্তৃপক্ষ আঞ্চলিক অনুষ্ঠানের গুরুত্ব বুঝতে পেরেছেন এ জন্য তাদের ধন্যবাদ। সোমবার প্রচারিত হয়েছে আঞ্চলিক ভাষায় নির্মিত ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান আঁরা চাটগাঁইয়া। নাসরিন ইসলামের উপস্থাপনায় গান, নাচ, কৌতুক, যাদু, প্রতিবেদন সব মিলিয়ে উপভোগ্য অনুষ্ঠান। চট্টগ্রামের দুই শিল্পী সনজিত আচার্য ও কল্যাণী ঘোষের গাওয়া গানটির কথা ছিল বেশ মজার এবং গুরুত্বপূর্ণ। দুই শিল্পীই বেশ ভালো গেয়েছেন। গরমে শিশুদের রোগবালাই নিয়ে আলোচনায় অংশ নেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আসমা সুলতানা। আবৃত্তি করেন লুবাবা ফেরদৌসি শায়কা। কৌতুক পরিবেশন করেন নোভা মিলা। অসুন্দর বাচনভঙ্গি আর কৌতুক বলার স্টাইল কৌতুকের বিষয়বস্তুকে গৌণ করে ফেলেছে। গতানুগতিক যাদুই প্রদর্শন করেছেন যাদুশিল্পী নোমান হোসেন। বাড়তি কোনো আকর্ষণ তিনি সৃষ্টি করতে পারেননি। অনুষ্ঠানের শেষে টেরিবাজারের ঈদ কেনাকাটা নিয়ে একটি সংক্ষিপ্ত প্রতিবেদন ছিল। প্রতিবেদনের বিষয়বস্তু গুরুত্বপূর্ণ হলেও প্রতিবেদনটিকে অসম্পূর্ণ ও অপরিকল্পিত মনে হয়েছে। টেরিবাজারের ইতিহাস ঐতিহ্য জানতে চেয়ে সাক্ষাৎকার দাতাদের সময় দেয়া হয়েছে ২০ সেকেন্ডেরও কম। পুরো প্রতিবেদনটিই এক/দেড় মিনিটের বেশি নয়। উপস্থাপনায় নাসরিন ইসলাম ভালো করেছেন,তবে আরো সাবলিল হওয়া প্রয়োজন। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষা কথ্য ভাষার মতো না শোনালে বেখাপ্পাই লাগে। আগামী পর্বগুলো আরো বেশি পরিকল্পিত হবে, সুন্দর হবে এ প্রত্যাশা রইল।

১২ মে প্রচারিত হয় নতুন শিল্পীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠান নবধারা। কোনো কোনো ক্ষেত্রে নিয়মিত শিল্পীদের চেয়েও ভালো পরিবেশনা করছেন নবীন শিল্পীরা। যেমন এ পর্বে শতাব্দী মজুমদারের গিটারে এবং ত্রিদিব কুমার বৈদ্যের তবলার সুরে রবীন্দ্রনাথের গান ব্যতিক্রমী পরিবেশনা ছিল। দুয়েকবার তাল কেটে গেলেও শিল্পীদের আন্তরিকতায় তা খুব একটা কানে লাগেনি। তবে অদিতি সেনে কণ্ঠে রবীঠাকুরের অন্যতম জনপ্রিয় গান ‘চোখের আলোয় দেখেছিলাম চোখের বাহিরে’ ততটা ভালো লাগেনি। শিল্পীকে শুধু নবীনই মনে হয়নি, অত্যন্ত কাঁচাও মনে হয়েছে। চর্চা থাকলে আশা করি ভালো করতে পারবে। সে তুলনায় নওশীন নাওয়াল নীলয়ের কণ্ঠে ‘আজি এ প্রভাতে রবির কর’ কবিতাটি বেশ ভালো লেগেছে। বহুল পঠিত এ কবিতাটি সুন্দরভাবেই আবৃত্তি করেছেন তিনি। বেখাপ্পা লেগেছে রবীন্দ্রনাথের গানের ডিজিটাল ভার্সনে ইষা দাশের নৃত্য পরিবেশনা। ‘গ্রাম ছাড়া ওই রাঙা মাটির পথ’ কত ভালো লাগার একটি গান, অথচ সে গানটিকে রিমেক করেই বাজাতে হল। রবীন্দ্রনাথ বেঁচে থাকলে নিশ্চয় তাঁর গানের এমন অপমান দেখলে লজ্জায়অভিমানে মুখ লুকাতেন। বয়স্ক শিল্পী হলেও সুজিত ভট্টাচার্য দোলন রবীন্দ্র সঙ্গীত আত্মস্থ করতে পারেননি। অনেকটা বেসুরে গাওয়া গানটি মন ভরাতে পারেনি।

এখন মৌসুম ঘূর্ণিঝড়ের। যখন তখন হানা দিচ্ছে কালবৈশাখী। যে কোনো সময় বড় ধরনের ঘূর্ণিঝদ আঘাত হানতে পারে উপকূলে। তাই প্রয়োজন প্রস্তুতি। সে প্রস্তুতিটা কেমন হবে কিংব ঘূর্ণিঝড়ের আগে কি কি বিষয় জানা থাকা দরকার তাই নিয়ে প্রচারিত হচ্ছে একটা সচেতনতামূলক প্রামাণ্যচিত্র। অভিনেতা রাশেদ মামুন অপুর উপস্থাপনায় ঘূর্ণিঝড় বিষয়ে নানান তথ্য এবং প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনায় অংশ নিয়েছেন মো. আনিসুজ্জামান। অনেকটা নাটকীয় ঢঙে বিটিভি ঢাকা কেন্দ্রের বানানো এ প্রামাণ্যচিত্রটি দেখলে উপকূলের মানুষরা সচেতন হতে পারবে বলে আশা করা যায়।

x