ফেসবুকে এবার দুদিন আগেই ইংরেজি প্রশ্নের বিজ্ঞাপন!

রতন বড়ুয়া

এসএসসি পরীক্ষা

রবিবার , ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ at ৪:০৮ পূর্বাহ্ণ
606

দেশব্যাপী গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে একযোগে শুরু হয়েছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। প্রথম দিন (বৃহস্পতিবার) বাংলা প্রথম পত্রের পর গতকাল (শনিবার) অনুষ্ঠিত হয়েছে বাংলা দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা। রুটিন অনুযায়ী ইংরেজি প্রথম পত্রের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে আগামীকাল সোমবার। কিন্তু গতকাল (শনিবার) রাত থেকেই ইংরেজি প্রথম পত্রের প্রশ্নের বিজ্ঞাপন চলছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। রাত ১০টার দিকে ‘Psc/Jsc/Ssc/Hsc Question Out And Result Change’ নামক একটি ফেসবুক পেজে এই বিজ্ঞাপন দেয়া হয়। ইংরেজি প্রথম পত্রের প্রশ্নের উপরিভাগের একটি ছবি সহকারে Abu Rouf নামের একজন ওই পেজে (ইংরেজি হরফে বাংলায়) লিখেছেনএইমাত্র এসএসসি ২০১৮ ইংলিশ ফার্স্ট ফুল (পুরো) কোয়েশ্চন হাতে পেলামযাদের লাগবে শুধু তারাই ইনবক্স করুন।

এই পোস্টের সূত্র ধরে (ছবিটি শেয়ার করে) একটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কর্মকর্তা তাঁর টাইমলাইনে লিখেন– ‘এসএসসি পরীক্ষা২০১৮ এর বাংলা প্রথম পত্র এবং বাংলা দ্বিতীয় পত্র প্রশ্নপত্র ফাঁসের ধারাবাহিকতায় এবার দু’দিন আগেই ইংরেজি প্রথম পত্রের প্রশ্নপত্র নিয়ে চলছে বিকিকিনি। আহারে আমার দেশ!!!’ অবশ্য, স্ট্যাটাসের নিচের অংশে বিশেষ দ্রষ্টব্য দিয়ে ‘সত্যমিথ্যা যাচাইয়ের অবকাশ আছে’ উল্লেখ করেন তিনি।

এর আগে (রাত ৯টার দিকে) Rohit Hassan নামের অপর একজন একই পেজে লিখেছেন– ‘আজকে বাংলা ২য় পত্র ১০০% কমন দিলাম। যাদের ইংলিশ ১ম পত্র লাগবে কল করো। ইংরেজি ১ম পত্র কোয়েশ্চন আমার হাতে আছে। উত্তরসহ প্রশ্ন দিব, তোমদের জন্য প্রতিবারের মতো এবার দিতাছি ১০০% নিশ্চয়তা। সবার আগে প্রশ্ন দিব। নিতে চাইলে যোগাযোগ কর– 01701579812। বাংলা ১ম, বাংলা ২য় প্রশ্ন ১০০% কমন দিতে চেয়েছিলাম। ১০০% কমন দিয়ে আমি আমার কথা রেখেছি Tusar Khan। এখন #SSC_Alim_Tec_ প্রশ্ন যারা নিবেন, ১০০% কমন গ্যারান্টি দিয়ে দিবো। তাই বলছি যারা নিবেন তারা এখনি কল-01701579812

তবে উল্লেখ করা এই নাম্বারে রাতে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সংযোগ পাওয়া যায়নি। এই পোস্টের ঘণ্টাখানেক সময়ের ব্যবধানে একই পেজে

Samira Khan নামের আরো একজন লিখেছেন

‘SSC English lagle inbox me’

প্রসঙ্গত, শুরুর পর থেকে অনুষ্ঠিত দুটি পরীক্ষারই (বাংলা ১ম ও ২য়) প্রশ্ন ফাঁসের খবর বেরিয়েছে এবার। আর দুদিন আগেই ইংরেজি ১ম পত্রের প্রশ্ন বেচাকেনার বিজ্ঞাপন চলছে ফেসবুকে। এ নিয়ে চরমভাবে ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা। আর বিভ্রান্তের পাশাপাশি তিগ্রস্ত হচ্ছে পরীক্ষার্থীরা। তারা কি পড়বে নাকি প্রশ্ন ফাঁসের গুজবের পিছনে দৌড়াবে? প্রশ্ন উঠেছে এই অসাধুচক্রের হাতে তাহলে সরকার অসহায়? এদিকে ফেসবুকে আগে থেকেই প্রশ্ন ফাঁসের খবর কিংবা বেচাবিক্রির বিজ্ঞাপন দিলেও বিটিআরসি কিংবা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে এখনো পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ দেখা যায়নি। এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ভূমিকায় চরম হতাশ আবুল হাসনাত নামের এক অভিভাবক। তাঁর একমাত্র ছেলেটি এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী। কিন্তু ধারাবহিকভাবে প্রশ্ন ফাঁসের খবর বেরুলেও এর হোতাদের চিহ্নিত করা বা আটকের কোন পদক্ষেপ না থাকার বিষয়টি তাঁকে পীড়া দিচ্ছে ভীষণ। ক্ষুব্ধ কণ্ঠে তিনি বলছিলেনএভাবেই কি চলতে থাকবে। দিনের পর দিন এক প্রকার বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রশ্ন বেচাকেনা চলছে। ফেসবুকের সুনিদির্ষ্ট আইডি ও পেজ থেকে এসব বিজ্ঞাপন দেয়া হচ্ছে। সেখানে মোবাইল নাম্বারও দেয়া থাকছে। এরপরও এই কয়দিন প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কাউকে চিহ্নিত বা আটক করতে শুনলাম না। এ নিয়ে বিটিআরসির পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দয়াল চক্রবর্তী নামের অপর এক অভিভাবক। তাঁর দাবিসরকার বা প্রভাবশালী কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে ফেসবুকে লিখলে বেনামি কিংবা ভুয়া আইডি ধারীদেরও ২৪ ঘন্টার মধ্যে চিহ্নিত করার মাধ্যমে আটকের খবর আমরা পাই। তাহলে প্রশ্ন ফাঁসের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট এবং নামধারী আইডি সংশ্লিষ্টদের কেন চিহ্নিত বা আটক করা যায় না। এ বিষয়টি কিছুতেই বোধগম্য নয় মন্তব্য করে তিনি বলেনতাছাড়া মোবাইল নম্বরও উল্লেখ করা থাকছে। অবশ্য মোবাইল নম্বর দিয়ে নিরাপরাধ কাউকে ফাঁসানোর আশঙ্কাও উড়িয়ে দেয়া যায় না। যত দ্রুত সম্ভব প্রশ্ন ফাঁসের মূল হোতাদের আইনের আওতায় এনে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবন রক্ষার দাবি জানান এই অভিভাবক।

অবশ্য, খবর বেরুলেও প্রশ্ন ফাঁসের বিষয় নিয়ে পরীক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন অভিভাবক, শিক্ষাবিদ ও শিক্ষা প্রশাসন সংশ্লিষ্টরা।

x