ফ্রান্সে সুপারমার্কেটে হামলাকারী নিহত

জিম্মিসংকটের অবসান

আজাদী অনলাইন

শুক্রবার , ২৩ মার্চ, ২০১৮ at ৭:৪৫ অপরাহ্ণ
50

দক্ষিণ ফ্রান্সে একটি সুপারমার্কেটে বন্দুকধারীর হামলার ঘটনায় কমপক্ষে তিনজন এবং পুলিশের গুলিতে বন্দুকধারী নিহত হওয়ার পর জিম্মি সংকটের অবসান হয়েছে। দক্ষিণ ফ্রান্সের ত্রেব শহরে স্থানীয় সময় সকাল ১১টার দিকে ওই হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলার পর পর এলিট পুলিশ সদস্যরা দ্রুত ওই সুপার ইউ শপে ছুটে যায়। আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম বিবিসি জানায়, বন্দুকধারীটি নিজেকে ইসলামিক স্টেট (আইএস) গ্রুপের প্রতি অনুগত বলে দাবি করেছে।

মরক্কোর বংশোদ্ভুত ওই হামলাকারী প্রাচীন পর্যটন শহর কারকাসোনে এক যাত্রীকে হত্যা এবং চালককে আহত করে একটি গাড়ি ছিনতাই করে। একজন পুলিশ সদস্য তার সহকর্মীদের সাথে সুপারমার্কেটটি থেকে ১৫-মিনিট দূরত্বের কারকাসোনে জগিং করার সময় গুলিবিদ্ধ হয়। একই বন্দুকধারীর গুলিতে তিনি কাঁধে গুলিবিদ্ধ হলেও গুরুতর আহত নন বলে আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা এসোসিয়েটেড প্রেসকে জানান এক পুলিশ কর্মকর্তা।

ওই গাড়ি নিয়ে আট কিলোমিটার রাস্তা পেরিয়ে হামলাকারী উপস্থিত হয় পাশের ত্রেব শহরের সুপার ইউ শপে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ওই সুপারমার্কেটে ঢুকে ভেতরে থাকা ক্রেতা ও কর্মীদের জিম্মি করে বন্দুকধারীটি। সেখানে অন্তত দুইজন তার হাতে খুন হয়। পরে ৪৫ বছর বয়সী একজন লেফটেন্যান্ট কর্নেল নিজের বিনিময়ে অন্য জিম্মিদের মুক্ত করেন। আর হামলাকারীর মৃত্যু হয় পুলিশের গুলিতে।

একটি নিরাপত্তা সূত্র ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানায় যে সুপারমার্কেটটির অধিকাংশ কর্মকর্তা ও ক্রেতা পালাতে সক্ষম হয়।

ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী এদুয়ার্দ ফিলিপ্পে ঘটনাটিকে ‘মারাত্মক’ উল্লেখ করে এটিতে ‘সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের’ সব ধরনের চিহ্ন রয়েছে বলে জানান।

২০১৫ সাল থেকে ফ্রান্স অনেকগুলো উগ্রবাদী হামলার শিকার হয় এবং তখন থেকেই উচ্চ সতর্কাবস্থায় রয়েছে। ২০১৫ সালের নভেম্বরে প্যারিসে হামলায় ১৩০ জন নিহত হওয়ার পর আরোপ করা জরুরি অবস্থা গত অক্টোবরে তুলে নেয়া হয়।

 

x