মেসির ৪০০তম ম্যাচেই শিরোপার আরো কাছে বার্সা সেলতা ভিগোর সাথে ড্র করে পিছিয়ে গেল রিয়াল

স্পোর্টস ডেস্ক

মঙ্গলবার , ৯ জানুয়ারি, ২০১৮ at ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ
25

লা লিগায় আরেকটি মাইলফলক ছোঁয়ার ম্যাচে জ্বলে উঠলেন লিওনেল মেসি। জালের দেখা পেলেন লুইস সুয়ারেসও। দুর্বল লেভান্তের বিপক্ষে বার্সেলোনা পেল প্রত্যাশিত সহজ জয়। রোববার নিজেদের মাঠ ন্যু ক্যাম্পে স্থানীয় সময় বিকালে শুরু হওয়া ম্যাচে ৩০ গোলে জিতেছে বার্সেলোনা। অন্য গোলটি পাওলিনিয়োর। অপরদিকে উজ্জীবিত সেল্‌তা ভিগো রুখে দিল রিয়াল মাদ্রিদকে। পিছিয়ে পড়া দলকে জোড়া গোলে জয়ের আশা দেখিয়েছিলেন গ্যারেথ বেল। স্পট কিক ঠেকিয়ে ৩ পয়েন্টের সম্ভাবনা বাঁচিয়ে রেখেছিলেন কেইলর নাভাস। কিন্তু একের পর এক আক্রমণে জিনেদিন জিদানের দলকে বিদীর্ণ করা স্বাগতিকরা কেড়ে নিয়েছে পয়েন্ট। সোমবার লা লিগার ম্যাচে জিদানের শিষ্যদের সঙ্গে ২২ গোলে ড্র করেছে সেল্‌তা। স্বাগতিকদের গোল দুটি করেন ড্যানিয়েল ভাস ও গোমেস। এই জয়ের ফলে ১৮ ম্যাচে ১৫ জয় ও তিন ড্রয়ে শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার পয়েন্ট হলো ৪৮। ৯ পয়েন্ট কম নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। আর ১৭ ম্যাচে ৩২ পয়েন্ট নিয়ে রিয়াল আছে চার নম্বরে।

প্রায় সাড়ে তিন মাসের বেশি সময় ইনজুরির কারণে বাইরে থাকার পর মাঠে নামা উসমান দেম্বেলে গোল না পেলেও ম্বরূপে ফেরার আভাস দিয়েছেন। ৬৭ মিনিটে তাকে তুলে নেন কোচ। পয়েন্ট টেবিলের নিচের দিকের দল লেভান্তের বিপক্ষে ম্যাচের শুরুর দিকেই গোল পেয়ে যায় বার্সেলোনা। দ্বাদশ মিনিটে জর্দি আলবাকে বল বাড়িয়ে দ্রুত ডিবক্সে ঢুকে সতীর্থের হেডে ফিরতি বল পেয়ে হাফভলিতে লক্ষ্যভেদ করেন মেসি। বল পোস্টের ভিতরের দিকে লেগে জালে জড়ায়। এবারের লিগে এ নিয়ে সর্বোচ্চ ১৬ গোল করলেন মেসি। লা লিগায় বার্সেলোনার জার্সিতে ৪০০ ম্যাচ খেলে ৩৬৫ গোল করলেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক। ৩৮ মিনিটে অতর্কিত এক আক্রমণে ব্যবধান দ্বিগুণ করে স্বাগতিকরা। মাঝমাঠ থেকে পাওলিনিয়োর উঁচু লম্বা শটে বল ডান দিকে পেয়ে প্রথম ছোঁয়ায় ডিবক্সে বাড়ান সার্জিও ও রবের্তো। আর বল বাঁ পায়ে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ডান পায়ের জোরালো শটে এবারের লিগে নিজের একাদশ গোলটি করেন সুয়ারেস।

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম মিনিটে মার্কআন্ড্রে টের স্টেগেনের পরীক্ষা নেন ইভি লোপেস। ডিবক্সের বাইরে থেকে স্প্যানিশ এই ফরোয়ার্ডের জোরালো শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান বার্সেলোনা গোলরক্ষক। ৭২ মিনিটে অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে ডিবক্সে ঢুকে সুয়ারেসের নেওয়া প্রথম শট রক্ষণে প্রতিহত হওয়ার পর ফিরতি বলে তার দ্বিতীয় শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান গোলরক্ষক। অতিরিক্ত সময়ে ডিবক্সের মধ্যে এক জনকে কাটিয়ে আরেক জনের বাধা এড়িয়ে ছয় গজ বক্সের মুখে বল বাড়ান মেসি। তা পেয়ে অনায়াসে দলের তৃতীয় গোলটি করেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার পাওলিনিয়ো।

এদিকে সেলতা ভিগোর বিপক্ষে ম্যাচে খুঁজেই পাওয়া যায়নি রিয়ালের সবচেয়ে বড় তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে। খুব বেশি সুযোগ তৈরি করতে পারেনি শিরোপাধারীরা। সেল্‌তার আক্রমণের ঢেউ সামলাতেই বেশি ব্যস্ত থাকতে হয়েছে তাদের। ঘরের মাঠে শুরু থেকেই রিয়ালকে চেপে ধরে সেল্‌তা। ত্রয়োদশ মিনিটে ম্যাচের প্রথম সুযোগ তৈরি করে তারা। উগো মায়োর দারুণ ক্রস বিপজ্জনক জায়গায় খুঁজে পায় ইয়াগো আসপাসকে। কিন্তু স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড খুব কাছ থেকে পোস্টে মেরে সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেন। ২৫ মিনিটে আবারো সুযোগ আসে সেল্‌তার সামনে। এবার গোমেসের বুদ্ধিদীপ্ত পাসে তালগোল পাকান ভাস। শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি ডেনমার্কের এই মিডফিল্ডার। রোনালদোর হারানো বল থেকে পাল্টা আক্রমণে এগিয়ে যায় সেল্‌তা। ৩৩ মিনিটে মাঝরেখা থেকে আসপাসের দারুণ পাস খুঁজে পায় অরক্ষিত ভাসকে। চার খেলোয়াড় ছুটে যান সেদিকে। এগিয়ে আসছিলেন গোলরক্ষকও। তবে এবার ঠান্ডা মাথায় নাভাসের মাথার ওপর দিয়ে জালে বল পাঠান ভাস। পিছিয়ে পড়ার পর যেন জেগে উঠে রিয়াল। পাল্টা আক্রমণে ৩৬ মিনিটে সমতা ফেরায় অতিথিরা। টনি ক্রুসের পাস থেকে দূরের পোস্ট ঘেঁষে জালে বল পাঠান বেল। দুই মিনিট পর ওয়েলস ফরোয়ার্ডের আরেকটি দারুণ ফিনিশিংয়ে এগিয়ে যায় শিরোপাধারীরা। শুরুর একাদশে ফেরা ইসকোর পাসে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন ছন্দে ফেরা বেল। দ্বিতীয়ার্ধে একের পর এক আক্রমণে রিয়ালের রক্ষণকে ব্যস্ত রাখে সেল্‌তা। ৬১ মিনিটে এই অর্ধের প্রথম সত্যিকারের সুযোগ পায় তারা। জনি কাস্ত্রোর শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে বাইরে চলে যায়। ৭১ মিনিটে রিয়ালের ত্রাতা নাভাস। আসপাসকে ডিবক্সে ফাউল করে নিশ্চিত গোল ঠেকান কোস্টা রিকার এই গোলরক্ষক। লাল কার্ড পেতে পারতেন, তবে রেফারি দেখান হলুদ কার্ড। নিজেই স্পট কিক নেন আসপাস, ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে দেন নাভাস। ৮২ মিনিটে আর ঠেকাতে পারেননি নাভাস। অরক্ষিক ভাসের ক্রস ডিবক্সে খুঁজে পায় অরক্ষিত গোমেসকে। তার হেড পৌঁছায় ঠিকানায়। ৮৮ মিনিটে দলকে তিন পয়েন্ট এনে দেওয়ার সুযোগ আসে রোনালদোর সামনে। কিন্তু গোলরক্ষক বরাবর শট নিয়ে দলকে হতাশ করেন তিনি। দুই মিনিট পর লুকাসের বুলেট গতির শট ঠেকিয়ে সেল্‌তার ত্রাতা গোলরক্ষক। এনিয়ে প্রতিপক্ষের মাঠে টানা ম্যাচে জয়শূন্য থাকল রিয়াল। গত মৌসুমে সেল্‌তার কাছে হেরে কোপা দেল রে থেকে বিদায় নিয়েছিল দলটি। এবার ড্র করে লিগ শিরোপা ধরে রাখার আশা প্রায় শেষ হয়ে গেল।

x