সংগীত পরিষদের বর্ষপূর্তি উৎসব

আনন্দন প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ১৭ মে, ২০১৮ at ৫:২৭ পূর্বাহ্ণ
11

সংগীত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংগীত পরিষদের ৭৯তম বর্ষপূর্তি দিনব্যাপী চট্টগ্রাম মুসলিম ইনস্টিটিউট হলে অনুষ্ঠিত হয়। পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে উদ্বোধন করেন প্রতিষ্ঠানের সভাপতি মেজর জেনারেল (অবঃ) প্রকৌশলী আবদুল মতিন।

উদ্বোধনী শেষে মঞ্চে হাজির হয় একঝাঁক কচিকাঁচা। জাতীয় সংগীত ও উদ্বোধনী সঙ্গীত অন্তর মম বিকশিত কর, অন্তর কর হে পরিবেশনের মধ্যে দিয়ে সকালের অধিবেশন শুরু হয়। রবীন্দ্র সংগীতটি পরিবেশন করেন প্রদীপ্তা, অমিষা, মুনমুন, পূর্বা, ফারহিনা,অনিন্দিতা,প্রিয়া, নবনীতা, অর্পা, স্নিগ্বা,অথৈ, অহনা, নুসরাত, বিজয়ন্তীম শ্রেয়া, দেবলীনা, দেবশ্রী, ঋষিতা, বৈশাখী, বিশাখা, পুষ্পিতা, প্রেমাঞ্চিতা, ফাইরুজ, সুলগ্না, অর্পা, অনন্যা, সঞ্চিতা, মহুয়া, ঋতু, পিয়াস, স্নেহা, অনন্যা, প্রিয়ব্রতা।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মেজর জেনারেল (অবঃ) প্রকৌশলী আবদুল মতিন। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যথাক্রমে বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক সুলতান আহমদ, সাংস্কৃতিক সংগঠক প্রণব দাশগুপ্ত (বাচ্চু), চেমন আরা বেগম, প্রফেসর নাসিমা বানু, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের ধর্মনগর কলামন্ডল মিউজিক কলেজের সভাপতি সন্তোষ কুমার সূত্রধর ও নাজমুস আহসান। সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে রাখেন সংগীত পরিষদের সম্পাদক তাপস হোড়। তার বক্তব্যর প্রারম্ভে প্রয়াত সংগীত পরিষদের সভাপতি ভাষা সৈনিক, মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ ছৈয়দুর রহমান চৌধুরী এবং সংগীত পরিষদের সুহৃদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের অধ্যপক প্রফেসর এস এম আনসার আলী স্মৃতির উদ্দেশো শ্রদ্ধা জানিয়ে একমিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করেন।

আলোচনা সভার শেষে শিক্ষক মনীষা রায় এর পরিবেশনায় রবীন্দ্র সংগীত তোমায় প্রণাম করি’’ বাউল সংগীত শিল্পী মানস পাল এর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সংবর্ধিত অতিথির মানপত্র পাঠ করেন স্বর্ণময় চক্রবর্তী। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শেষে অধ্যক্ষ সৌরিন্দ্রলাল দাশগুপ্ত (চুলুবাবু) স্মৃতি বৃত্তির অর্থ বিতরণ এবং ২০১৮ সালের বিভিন্ন বর্ষের কৃতী ছাত্রছাত্রীদের ১ম, ২য় ও তয় স্থান অধিকারীদের ক্রেষ্ট ও সনদ বিতরণ করা হয়। এরপরই সংগীত পরিষদের ৪র্থ বর্ষের ছাত্রছাত্রীরা রাগ বাগেশ্রী ও ‘‘পায়েল বাজে মোরি’’ গানটি পরিবেশন করেন জুয়াইরিয়া, অমিষা, প্রদীপ্তা,মুনমুন,প্রেমা, শ্রাবনী, অরুনিমা, পূজা, সুস্মিতা, প্রিয়ান্তি।

‘‘গংগা,সিন্ধু নর্মদা এরপর নজরুল গীতিটি পরিবেশন করেন পুনম, পায়েল, ফারহিনা, অর্ণব, অনুরাগ, সিন্দিয়া, সানন্দা, পুস্পিতা, উর্মি, অনিন্দিতা। এরপরে সমবেত দেশাত্ববোধক গান ‘‘স্বাধীনতা তুমি মায়ের কান্না ’’ পরিবেশন করেন সেতু, তিথি, মৃত্তিকা, শ্রেয়া, পারিজাত, সীমান্ত, দিপালয়, মম, ঐশী। ‘‘সূর্যদয়ে তুমি ’’ দেশাত্ববোধক গান টি সমবেত নৃত্য পরিবেশন করেন অন্বেষা, আরাধ্যা, রাজেশ্বরী, পুষ্পিতা, উপমা, সাইরী, আরোহী, আরোশি, মারুরাহ্‌। গান শেষে হতে না হতেই নুপুরের শব্দে আবারও মুখর হয়ে ওঠে মঞ্চ। নৃত্যশিল্পী স্বপন বড়ুয়ার পরিচালনায় সমবেত নৃত্য ‘‘নাদের দেরতা তুমনা’’ পরিবেশন করেন অহনা, অন্তিকা, প্রিয়ন্তি, স্নেহা, শুভেচ্ছা, সুদিপা, পূর্ণা, রিয়া, দেবযানী। ‘‘ঢেঁকি নাচে ধাপুর ধুপুর সমবেত নৃত্যটি পরিবশেনায় ছিলেন সংহিতা, রাজশ্রী, মহিয়াসী, কারিশমা, মহুয়া, মেঘা, ফারজানা, ঐশিকা, তুমি অষ্মি, শ্রেয়া। শিশু শিল্পীদের পরিবেশনার ‘‘নাতি খাতি বেলা গেল’’ গানটির মধ্যে দিয়ে সকালের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সমাপ্তি ঘটে। অংশগ্রহণ করেন নকশী, প্রবুদ্ধ, প্রাঙ্গণ, আলোলিকা, ইলোনাইমা, পিউশি, তাজদিকম দিপীকা, শাবদীয়া, নবনীতা। এদিন বিকালে সংগীত পরিষদের শিক্ষকদের পরিচালনায় ‘‘জন্মভুমি বাংলো মাগো’’ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে একক গান পরিবেশন করেন ইন্দ্রনীল চক্রবর্তী নজরুল সংগীত। ফারহিনা রহমান পরিবেশন করেন ‘‘পথ চলিতে যদি চকিতে’’। এরপরে মঞ্চে এসে গান শোনান প্রমিতা ভট্টাচার্য ‘‘আজ সকালের সূর্য ওঠে’’। তবলা লহরা পরিবেশন করেন দেবজ্যোতি চৌধুরী, অর্ণব চক্রবর্তী, অর্ণ দেবনাথ, প্রান্ত দেব, নির্র্ভীক বৈদ্য, ঋতেশ চৌধুরী, জয়দীপ পাটোয়ারী, শ্রাবণ বড়ুয়া। এরপরে ভারতের পশ্চিম বঙ্গের সমীর আচার্য একক তবলা লহড়া পরিবেশন করেন। সন্ধ্যায় উৎসবের আমন্ত্রিত ভারতের ধর্মনগর উত্তর ত্রিপুরার কলামন্ডল মিউজিক কলেজ এর ছাত্রছাত্রীদের পরিবেশনায় কথক নৃত্যনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। দলটি বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় গানের নাচ উপস্থাপনের মধ্যে দিয়ে মঞ্চ ছাড়েন। এরপরে সমাপনী সঙ্গীত ‘‘আমার গানের অস্থায়ী’’ গানের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আনন্দে মেতে ওঠেন ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত উপস্থিত অভিভাবকবৃন্দ ও সংগীতপিয়াসী দর্শক।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন সঙ্গীত পরিষদের শিক্ষক শিক্ষিকাবৃন্দ অধ্যক্ষ সুজিত কুমার সেন, ওস্তাদ স্বর্ণময় চক্রবর্তী, জসীম মোস্তফা, মিতালী রায়, পিন্টু ঘোষ, জয় প্রকাশ ভট্টাচার্য্য, স্বপন বড়ুয়া, মনীষা রায়, শম্পা ভট্টাচার্য্য, ভবানী বসাক, বনানী চক্রবর্তী, অলক কুমার ভট্টাচার্য্য, ত্রিদিব কুমার বৈদ্য, অঞ্জন দাশ, সঞ্জয় বলিক, মোহাম্মদ কামাল, রাজশ্রী দাশ, রিপন রায় চৌধুরী, প্রান্ত আচার্য্য, রিপন সেনগুপ্ত ও দীপ্ত দত্ত।

x