আজাদী প্রতিবেদন

নগরীতে ঝড়ো বাতাসের সাথে টানা বৃষ্টির মাঝে বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে এক শিশুসহ দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। পৃথক এই দুর্ঘটনায় আরও একজন গুরুতর আহত হন। এছাড়া কর্মরত অবস্থায় ড্রেজারের আঘাতে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

গতকাল সোমবার সকালে পাঁচলাইশ থানাধীন বাদুরতলা ও হালিশহর থানাধীন রামপুরা এবং পতেঙ্গা এলাকায় পৃথক পৃথক দুর্ঘটনায় তাঁদের মৃত্যু হয়। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল ইসলাম গতকাল সন্ধ্যায় আজাদীকে জানিয়েছেন, বাদুরতলার ইলিয়াস কলোনীর বাসিন্দা রবিউল করিম (৪০) সকালে বাসার সামনে বিদ্যুতের তার পড়ে থাকতে দেখে তা সরাতে যান। এ সময় তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। এছাড়া রবিউলকে বাঁচাতে গিয়ে তার স্ত্রী রোকসানা বেগম (৩০) বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। স্থানীয় লোকজন উভয়কে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রবিউলকে মৃত ঘোষণা করেন। রোকসানা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

আর নগরীর হালিশহর থানাধীন রামপুরা এলাকায় সকালে মাঠে খেলতে গিয়ে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে রাজু নামে ১২ বছর বয়সী এক শিশু মারা যায়। এদিকে পতেঙ্গা চ্যানেলে কাজ করার সময় ড্রেজারের আঘাতে আলম উল্লাহ (৩২) নামে এক ব্যক্তি গুরুতর আহত হন। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আলম উল্লাহকে মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ জানিয়েছে, বাদুরতলার রবিউল করিম কাছেই একটি গ্যারেজে নিরাপত্তা রক্ষীর কাজ করেন। তিনি এলাকার ফজলুল করিমের ছেলে এবং রাজু স্থানীয় আবদুল আজিজ এবং আলম উল্লাহ বরিশাল জেলার রাজপুর এলাকার মকবুল আহমেদের ছেলে।

LEAVE A REPLY