স্পোর্টস ডেস্ক

এশিয়ান অঞ্চলের ‘এ’ গ্রুপের তৃতীয় রাউন্ডের লড়াইয়ে উজবেকিস্তানকে ২০ গোলে হারিয়ে এশিয়ার প্রথম দেশ এবং বিশ্বের দ্বিতীয় দল হিসেবে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। এর আগে চারবার বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছিল ইরান। ১৯৭৮, ১৯৯৮, ২০০৬ ও ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের মূল পর্বে খেলেছে ইরান। অন্যদিকে উজবেক এখনো বাছাইপর্বের বাঁধা পেরুতে পারেনি। ৮ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট অর্জন করা উজবেকদের সামনে এখনো অবশ্য সুযোগ শেষ হয়ে যায়নি। সরাসরি রাশিয়ার টিকিট পেতে হলে বাকি দুটি ম্যাচে অবশ্যই উজবেকিস্তানকে জয় নিশ্চিত করতে হবে। সরদার আজমাউন এবং মেহেদি তারেমির গোলেই বিশ্বকাপ খেলার যোগ্যতা অর্জন করলো ইরান। কার্লোস কুইরোজের দল আরও একবার নিজেদের পোস্ট রক্ষা করে ইতিহাস সৃষ্টি করলো। এ নিয়ে ৮ ম্যাচ খেলে একটিতেও গোল হজম করতে হয়নি ইরানিদের। দুই ম্যাচে গোলশূন্য ড্র এবং অন্য ৬ ম্যাচে প্রতিপক্ষের জালে বল প্রবেশ করিয়ে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে তারা। বাছাই পর্বে এখনও ২ ম্যাচ বাকি ইরানের। ২ ম্যাচ হাতে রেখেই বিশ্বকাপ খেলা নিশ্চিত করলো তারা। ‘এ’ গ্রুপে ৮ ম্যাচে সর্বোচ্চ ২০ পয়েন্ট অর্জন করেছে ইরানিরা। একই গ্রুপে দ্বিতীয় স্থানে থাকা দক্ষিণ কোরিয়ার পয়েন্ট ১৩। যদিও তারা খেলেছে ৭ ম্যাচ। বাছাইপর্বের ততীয় রাউন্ডে ইরান এখনো অপরাজিত রয়েছে। রাশিয়া যাবার পথে তারা বাছাইপর্বে দ্বিতীয়বারের মত উজবেকদের পরাস্ত করলো। ঘরের মাঠ তেহরানের আজাদী স্টেডিয়ামে সমর্থকদের সামনে ইরান প্রথম থেকেই আধিপত্য বিস্তার করে খেলতে থাকে। ২৩ মিনিটে রোস্তোভ ফরোয়ার্ড আজমাউন আলিরেজা জাহানবাক্সের থ্রু বল থেকে প্রথম গোল করে দলকে এগিয়ে দেন। ৪৮ মিনিটে টারেমির আদায় করা পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হন মাসুদ শাওজায়ে। খেলা শেষ হওয়ার ২ মিনিট আগে ৮৮ মিনিটে আজমাউনের পাস থেকে মেহেদি তারেমি দ্বিতীয় গোল করলে ইরানের জয় নিশ্চিত হয়। স্বাগতিক রাশিয়া ছাড়া বাছাই পর্ব থেকে সবার আগে বিশ্বকাপ খেলা নিশ্চিত করেছে ব্রাজিল। দ্বিতীয় দল হিসেবে এশিয়া থেকে বিশ্বকাপ নিশ্চিত হলো ইরানের। এশিয়ান অঞ্চলের ‘বি ‘ গ্রুপে বাছাই পর্বের শেষ ম্যাচ পর্যন্তও নিশ্চিত হওয়া যাবে না কোন দুটি দল খেলবে বিশ্বকাপ। কারণ, তিন দলজাপান, সৌদি আরব এবং অস্ট্রেলিয়ার পয়েন্ট সমান ১৬ করে। গোল গড়ে যদিও জাপান এগিয়ে, দুই নম্বরে সৌদি আরব এবং তিন নম্বরে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। এর মধ্যে জাপান আবার খেলেছে একটি ম্যাচ কম (৭টি)। গত ৮ জুন অস্ট্রেলিয়ার কাছে সৌদি আরবের ৩২ গোলে পরাজয়ের কারণেই এই গ্রুপটা জমে উঠেছে। সৌদি আরব না হারলে তারাই থাকতো উপরে এবং অস্ট্রেলিয়া লড়াই থেকে অনেক পিছিয়ে পড়তো। জাপানের তিন এবং সৌদি ও অস্ট্রেলিয়ার বাকি এখনও ২টি করে ম্যাচ।

LEAVE A REPLY