ফটিকছড়ি প্রতিনিধি ।।

ফটিকছড়ি উপেজলায় বন্যার পানিতে ভেসে যাওয়া দুই যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তারা হলেন মফিজুর রহমান (৩২) ও ধনা কর্মকার (২২)। এনিয়ে গত তিনদিনে ফটিকছড়িতে বন্যা ও পাহাড় ধসে চার জনের মৃত্যু হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে লেলাং ইউনিয়নের উত্তর গোপালঘাটা হাদীনগর হযরত হাদী বাদশাহ্‌ আউলিয়া (.) এর মাজারের পাশে বিলের মাঝে অজ্ঞাত একটি লাশটি পড়ে থাকতে দেখে পথচারীরা। খবর পেয়ে নিখোঁজ হওয়া পরিবারের লোকজন সেখানে গিয়ে তার লাশের পরিচয় চিহ্নিত করেন। মফিজুর রহমান (৩২) নামে যুবকটি ভুজপুর আন্ধার মানিক বড়বিল এলাকার নুরুল আলমের ছেলে। তবে, তিনি ফটিকছড়ি পৌরসভাধীন রাঙ্গামাটিয়া মাহালিয়া টিলায় গত ছয় বছর যাবৎ শশুরবাড়িতে বসবাস করতেন। তিনি ওই গ্রামের আমিনুর রহমানের জামাতা। বিষয়টি নিশ্চিত করে ফটিকছড়ি থানার এস.আই হাবিব বলেন, লাশের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে বন্যার পানির স্রোতে ভেসে মারা গেছেন তিনি। পেশায় রাজমিস্ত্রি। তিনি এক পুত্র সন্তানের বাবা। লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

অপর দিকে গত বুধবার দুপুরে ফটিকছড়ির বাগান বাজার ইউনিয়নের আন্ধার মানিক এলাকা থেকে ধনা কর্মকার (২২) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়। সে ওই ইউনিয়নের কুন্ডা কর্মকারের ছেলে। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান মো. রুস্তম আলী সূত্র জানায়, সে রামগড় চা বাগান থেকে কাজ করে বাড়ি ফেরার পথে পাশে ফেনী নদীতে পানির স্রোতে ভেসে যায়।

ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপক কুমার রায় বলেন, পাহাড় ধসে নিহত উপজাতি মহিলার পরিবারকে সরকারী তহবিল থেকে ২০ হাজার টাকা ও ৩০ কেজি চাল দেওয়া হয়েছে। অপর ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে সরকারি সাহায্য দেওয়ার চেষ্টা চলছে।

LEAVE A REPLY