জালাল উদ্দিন ওমর

ইসলামে নামাজ রোজার মতই যাকাত একটি ফরজ ইবাদত। যাকাত হচ্ছে অর্থের ইবাদত। আর্থিকভাবে সচ্ছল মানুষদের ওপর যাকাত আদায় বাধ্যতামূলক। আর আর্থিক সচ্ছলতার মাপকাঠি ইসলাম নির্ধারণ করে দিয়েছে। আর্থিক সচ্ছলতার কোন্‌ অবস্থায় যাকাত আদায় করতে হবে সেটা ইসলাম সুস্পষ্টভাবে বলে দিয়েছে। কি পরিমাণ যাকাত একজন মানুষকে আদায় করতে হবে, সেটাও ইসলাম নির্ধারণ করে দিয়েছে । আর্থিক সচ্ছলতার ওপর যাকাতের পরিমাণ নির্ভর করে। যাকাতের পরিমান নির্ণয়ের ফর্মূলাও ইসলাম বলে দিয়েছে । আর যাকাতের অর্থ কোন কোন খাতে ব্যয় করতে হবে, সেটা ও ইসলাম নির্ধারণ করে দিয়েছে। যাকাত একটি আরবী পরিভাষা । এর অর্থ পবিত্রতা, প্রাচুর্যতা, ক্রমবৃদ্ধি এবং প্রশংসা ইত্যাদি। ইসলামী পরিভাষায় যাকাত হচ্ছে সম্পদের একটি নির্দিষ্ট অংশ কোন অসহায় মুসলমানকে দুনিয়াবী স্বার্থ ছাড়া প্রদান করা। যাকাত হচ্ছে অসহায়, অভাবী, অক্ষম এবং সুবিধা বঞ্চিত মুসলিম জনগোষ্ঠীর সামাজিক নিরাপত্তা, অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং দারিদ্রতা বিমোচনের মূল হাতিয়ার। যাকাত হচ্ছে একটি মানবিক সমাজ গড়নের হাতিয়ার এবং মানবকল্যাণই যাকাতের মুলমন্ত্র। যাকাত আদায়ের মাধ্যমে একজন মানুষের সম্পদ পবিত্রতা অর্জন করে, আর সেই যাকাতের অর্থ দিয়ে বঞ্চিত মানুষের সমস্যা সমাধান হয়। যাকাত হচ্ছে ধনীদের সম্পদে গরীবের অধিকার, যা আদায় করতে ধনী ব্যক্তিটি বাধ্য। মহান আল্লাহ কোরান শরিফে সালাত আদায়ের সাথে সাথে যাকাত আদায়ের ও নির্দেশ দিয়েছে। কোরান শরীফে তিনি মোট ৩২ বার যাকাত আদায়ের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। আল্লাহ একক ভাবে ৭ বার আর সালাতের সাথে ২৫ বার, যাকাত আদায়ের কথা বলেছেন। প্রকৃত পক্ষে যাকাত হচ্ছে মুসলমানদের জন্য একটি ফরজ ইবাদত। কিন্তু মুসলিম জাতির দুর্ভাগ্য হচ্ছে, মুসলমানেরা ঠিকমত যাকাত আদায় করে না । এমনকি যারা নামাজ পড়ে, রোজা রাখে তারা ও সঠিকভাবে যাকাত আদায় করে না। সঠিকভাবে যাকাত আদায় করলে আদায়কৃত যাকাতের পরিমাণ আরো অনেক বেশি হত। একদিকে মুসলমানেরা ঠিক মত যাকাত আদায় করে না, অপরদিকে সেই টাকা সঠিকভাবে সঠিক খাতে ব্যবহৃতও হয় না। ফলে যাকাতের উপকার থেকে সমাজ বঞ্চিত হচ্ছে। তাই আসুন সঠিক ভাবে যাকাত প্রদান করি এবং সেই যাকাতের অর্থ সঠিকভাবে ব্যবহারের মাধ্যমে একটি মানবিক সমাজ গড়ে তুলি ।

ঈমান আনার পর ইসলামের বিধানসমূহকে পূর্ণাঙ্গভাবে গ্রহণ করতে হবে এবং পালন করতে হবে। আপনি কিছু বিধান পালন করলেন আর কিছু বিধান পালন করলেন না এ রকম সুযোগ কিন্তু ইসলামে নেই। স্বাভাবিক ভাবেই নামাজ আদায়ের মত যাকাত ও আদায় করতে হবে। যাকাত আদায়ের পর সেই অর্থ যাকাতের অর্থ ব্যয়ের জন্য নির্ধারিত খাত সমূহে ব্যয় করতে হবে। পবিত্র কোরানে বর্ণিত যাকাত আদায় সম্পর্কিত আয়াতসমূহ থেকে আমি এখানে কয়েকটি আয়াত বর্ণনা করছি। তোমরা সালাত কায়েম কর, যাকাত প্রদান কর এবং রকুকারীদের সাথে রুকু কর (বাকারা৪৩)। তোমরা সালাত কায়েম কর, যাকাত দাও এবং আল্লাহকে দাও উত্তম ঋণ (মুজাম্মিল ২০)। তোমরা সালাত কায়েম কর, যাকাত দাও এবং আল্লাহ ও তার রাসুলের আনুগত্য কর (মুজাদালাহ১৩)। যারা যাকাত দেয় না তাদের সম্পর্কে বলেছেন যারা যাকাত দেয় না, তারাই আখিরাতের অস্বীকারকারী কাফির (হামীম সাজদা)। কোরান শরীফে আল্লাহ কর্তৃক বর্ণিত এই কয়েকটি আয়াত থেকে আমরা সহজেই যাকাতের গুরুত্ব অনুধাবন করতে পারি । কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলে ও সত্য মুসলমানেরা যাকাতের গুরুত্ব এখনো সঠিকভাবে বুঝতে পারেনি অথবা বুঝার চেষ্টা করেনি। এ কথাটি সত্য বলেই মুসলমান সমাজে সঠিকভাবে এখনো যাকাত আদায় হয় না এবং আদায়কৃত যাকাত সঠিকভাবে ব্যয়ও হয় না । যে সমস্ত মানুষের ওপর যাকাত ফরজ হয়েছে, সেই সমস্ত মানুষ যদি প্রত্যেকেই সঠিক পরিমাণে যাকাত প্রদান করত এবং সেই যাকাতের অর্থ যাকাতের নির্দিষ্ট খাতসমুহে ব্যয় করত তাহলে মুসলিম সমাজে কোন দরিদ্র , বঞ্চিত এবং অসহায় মানুষ থাকত না। মনে রাখতে হবে যাকাত হচ্ছে আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত একটি বিধান। আর এটা হচ্‌েছ ধনীদের সম্পদে বঞ্চিতদের অধিকার। এটা বঞ্চিতদের প্রতি ধনীদের কোন করুণা বা অনুগ্রহ নয়। আবার এটা দানও নয়। এটা হচ্ছে ধনীদের সম্পদে গরীবদের এমনই একটা অধিকার, যেটা প্রতি বছর ধনী ব্যক্তিরা গরীবদের প্রদান করতে বাধ্য এবং সেটা গরীবদের ঘরে পৌঁছে দেয়াটা ধনীদের দায়িত্ব । এভাবে যাকাত প্রদানকে আল্লাহ ফরজ করে দিয়েছেন যাতে একদিকে যাকাত আদায়ের মাধ্যমে ধনী ব্যক্তিরা তাদের ধর্মীয় বিধান পালন করবে, অপরদিকে যাকাতের অর্থ দিয়ে অটোমেটিক্যালি সমাজ থেকে দারিদ্রতা এবং সমস্যা দূর হবে। এভাবে যাকাত সিস্টেমের মাধ্যমে ইসলাম সার্বজনিন এবং কল্যাণমুখী অর্থনীতি চালু করেছে , যার মাধ্যমেই কেবল একটি আলোকিত এবং মানবিক সমাজ গড়া সম্ভব ।

অর্থের প্রতি মানুষের লোভ আদি কাল থেকেই চলে আসছে। মানুষেরা সহজে এবং স্বত:স্ফূর্ত ভাবে অপরের কল্যাণে টাকা পয়সা খরচ করতে চায় না। তাই অনেকে সঠিক ভাবে যাকাতের অর্থ আদায় করে না । অনেকে মনে করে যাকাতের টাকা প্রদান করলে সম্পদ কমে যাবে। কিন্তু প্রকৃত চিত্রটা ঠিক উল্টো। এ প্রসংগে আল্লাহ বলেন যাকাত দিলে সম্পদ বৃদ্ধি পায়। আল্লাহ বলেন তোমরা যে সুদ দিয়ে থাক, মানুষের সম্পদে বৃদ্ধি পাবার জন্য তা মূলত : আল্লাহর কাছে বৃদ্ধি পায় না। আর তোমরা যে যাকাত দিয়ে থাক আল্লাহর সন্তুষ্টি কামনা করে তাই বৃদ্ধি পায় এবং তারাই বহুগুণ সম্পদ প্রাপ্ত হয় (রূম৩৯)। একটু গভীর ভাবে পর্যালোচনা করলেই বিষয়টি পরিষ্কার হবে। যেমন একজন মানুষ সুদ খায় সম্পদ বাড়ানোর জন্য। কিন্তু বাস্তবে সুদের কারণে যিনি সুদ খায় তার সম্পদ বাড়ে না। কারণ সুদি সিস্টেমে গরীবের টাকা ধনীদের হাতে চলে আসে। ফলে যারা সুদ প্রদান করে তাদের হাতে টাকা থাকে না, ফলে তাদের ক্রয় ক্ষমতা থাকে না। এ অবস্থায় অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়ে, সমাজে দারিদ্রতা সৃষ্টি হয় এবং সমাজে ধনী দরিদ্রের ব্যবধান বাড়ে। অপরদিকে যাকাত আদায়ের ফলে ধনীদের সম্পদ দরিদ্রদের হাতে যায় । ফলে গরীবদের হাতে টাকা থাকে এবং তাদের ক্রয় ক্ষমতা বাড়ে। ফলে অর্থনীতির চাকা সচল হয় , সমাজে দরিদ্রের সংখ্যা কমে এবং সমাজে ধনী গরীবের বৈষম্য ও কমে। ফলে সমাজে সাম্য সৃষ্টি হয়। এভাবে যাকাত ব্যবস্থার কল্যাণে সমাজ উন্নত হয়। অপরদিকে সুদ গ্রহণের ফলে মানুষ আল্লাহর অসন্তুষ্টি অর্জন করে আর যাকাত প্রদানের ফলে মানুষ আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করে। এভাবে সুদের কারণে মানুষ ইহকাল এবং পরকাল উভয় অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অপরদিকে যাকাত প্রদানের ফলে মানুষ ইহকাল এবং পরকালউভয় ক্ষেত্রেই সফলতা অর্জন করে। যাকাতের অর্থ প্রদানের পর সেই অর্থ আবার যেন তেন খাতে ব্যয় করা যাবে না। কারণ যাকাত প্রদানের আটটি খাত আল্লাহ নিজেই নির্ধারণ করে দিয়েছেন। এ সম্পর্কে আল্লাহ বলেন নিশ্চয়ই সদাকা হচ্ছে (যাকাত পাবে আট প্রকার লোক) . ফকীর , . মিসকিন , . ঐসব লোক যারা সদাকা উত্তোলনের কাজে নিয়োজিত ৪. ঐ সমস্ত কাফির, যাদের অন্তর আকৃষ্ট করা প্রয়োজন ৫. দাস আযাদ করা ৬ ঋণগ্রস্তদের সাহায্য করা .. আল্লাহর রাস্তায় জিহাদকারী এবং ৮. মুসাফিরদের প্রয়োজনে ব্যবহার করার জন্য। এটা আল্লাহর পক্ষ থেকে সুনির্ধারিত। আর আল্লাহ মহাজ্ঞানী, তিনি প্রজ্ঞাময় (তওবাহ ৬০)। সুতরাং যাকাতের আদায়কৃত অর্থ সঠিক খাতেই ব্যয় করতে হবে। যাকাত ইস্যুতে একজন মুসলমানের অবস্থান হচ্ছে হয় তিনি যাকাত দিবেন অথবা যাকাত ভোগ করবেন। এক্ষেত্রে এ দুয়ের মধ্যবর্তী কোন অবস্থান নেই। কারণ যাকাত না দেয়া মানে যাকাত গ্রহণ করা। বিষয়টি একদম সিম্পল। মনে করুন একজন ব্যক্তির দশ হাজার টাকা যাকাত আসল। তিনি পাচ হাজার টাকা যাকাত প্রদান করলেন। যাকাতের বাকী পাচ হাজার টাকা নিজের কাছে রয়ে গেল। তার মানে এই টাকাটা তো তিনি নিজেই ভোগ করলেন। সুতরাং যাকাত প্রদানকারী ব্যক্তিটিই কিন্তু যাকাত ভোগ করলেন, যা মারাত্মক গোনাহ্‌ ।

মুসলমানদের প্রতি আমার একটি ছোট্ট আবেদন, আর তা হচ্ছে আপনাদের মধ্যে যাদের ওপর ইসলাম নির্ধারিত যাকাত আদায় ফরজ হয়েছে,তারা সবাই স্বত:স্ফূর্তভাবে নির্ধারিত যাকাত প্রদান করুন। এর মাধ্যমে আপনি আল্লাহর বিধান পালনের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করলেন আবার সমাজ থেকে দু:খ দুর্দশা লাঘবে ভূমিকা রাখলেন। তাই অনুগ্রহ করে যাকাত প্রদানে কার্পণ্য করবেন না । আপনি যাকাতের অর্থ দিয়ে একটি যাকাত ফান্ড গঠন করূন। সেই ফান্ড থেকে যাকাতের টাকা সমাজের অসহায় এবং বঞ্চিত মানুষের সমস্যা সমাধানের কাজে ব্যয় করুন। প্রতিটি ধনাঢ্য পরিবারের কর্তারা যদি যাকাতের টাকা দিয়ে একটি দরিদ্র পরিবারের সন্তানকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলার দায়িত্ব নেন তাহলে সমাজ খুব সহজেই শিক্ষার আলোয় আলোকিত হয়ে যাবে। একই ভাবে দেশের প্রতিটি ব্যবসায়ী এবং শিল্প গ্রুপ যদি তাদের তত্বাবধানে একটি যাকাত ফান্ড পরিচালিত করে এবং সেই যাকাত ফান্ডের টাকা দিয়ে সমাজের অসহায় এবং বঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ায়, তাহলে সমাজ আপনি আপনিই উন্নত হয়ে যায় । দুর্ভাগ্য যাকাত নিয়ে আমরা অনেকে এখন হাসি তামাশাও করি । বাজারে গিয়ে যখন বিজ্ঞাপন দেখি, যাতে লেখা থাকে –”এখানে যাকাতের কাপড় পাওয়া যায়” তখন বুঝতে আর বাকি থাকে না যে যাকাতকে খেল তামাশার বস্তুতে পরিণত করে ফেলেছি। আর যে কোন ব্যক্তি এই যাকাতের কাপড় সমূহ কিনলেই বুঝতে পারবেন, এ কাপড়গুলোর মান কতটা নিম্ন। আমার অনুরোধ, যাকাতের কাপড়ের নামে এ ধরনের কৃপণতা এখনই বন্ধ করুন। আমি সঠিক ভাবে যাকাত আদায় এবং তার সঠিক ব্যবহারের জন্য একটি যাকাত মন্ত্রণালয় গঠনের দাবী জানাচ্ছি ।

ইসলাম মানবতার ধর্ম। মানব কল্যাণেই ইসলামের মূলমন্ত্র। তা্‌্‌ই ইসলাম যার যাবতীয় কর্মই মানব কল্যাণের সাথে সংযুক্ত করেছেন। মুলতপক্ষে মানব কল্যাণের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের ইসলামের মূল লক্ষ্য। যাকাত তার জ্বলন্ত উদাহরণ। আল্লাহ যাকাতকে অবশ্যই পালনীয় ধর্মীয় বিষয় হিসাবে মুসলমানদের ওপর ফরজ করেছেন । অপরদিকে এর মাধ্যমে দারিদ্রতা দূরীকরণের স্থায়ী সিস্টেম চালু করেছেন। এর মাধ্যমে গরীবের প্রতি ধনীদের দায়বদ্ধতা সৃষ্টি করেছেন। ফলে সমাজে সাম্য, সম্প্রীতি এবং মানবতা প্রতিষ্ঠার ব্যবস্থা করেছেন। সুতরাং আসুন আমরা সবাই যাকাত প্রদান করি। মুসলমানদের পাশাপাশি অমুসলিমরা ও কিন্তু যাকাতের সিস্টেমে গরীবদের জন্য অর্থ ব্যয় করতে পারে। কারণ এই অর্থ তো মানব কল্যাণেই ব্যয় হবে। আসুন এর মাধ্যমে সমাজ থেকে ক্ষুধা, দারিদ্র্যতা, অশিক্ষা এবং অভাবকে দূর করি আর মানবিক একটি সমাজ প্রতিষ্ঠা করি ।

লেখক : প্রকৌশলী, আহ্বায়ক, যাকাত ফর হিউমিনিটি ।

LEAVE A REPLY