কাপ্তাই প্রতিনিধি

ভারি বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে কাপ্তাই লেকের পানির উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের স্পিলওয়ের সব কয়টি গেট খুলে দেওয়া হয়েছে। কাপ্তাই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ১৬টি স্পিল দিয়ে ৩ ফুট হারে পানি ছাড়া হচ্ছে বলে কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা যায়। লেকের অতিরিক্ত পানি কর্ণফুলী নদীতে ফেলা হচ্ছে। এর ফলে কাপ্তাই উপজেলার নিম্নাঞ্চলসহ রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, বোয়ালখালী উপজেলার নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

কাপ্তাই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক শফি উদ্দিন আহমেদ লেকে পানি বৃদ্ধির কথা স্বীকার করে বলেন, রুলকার্ভ (পানির পরিমাপ) অনুযায়ী লেকে এখন (১২ আগস্ট) থাকার কথা ৯৩.৫২ ফুট মীন সী লেভেল (এমএসএল) পানি। কিন্তু লেকে বর্তমানে পানি রয়েছে ১০৭.৭৮ ফুট এমএসএল পানি। রুলকার্ভের চেয়ে লেকে প্রায় ১৪ ফুট এমএসএল পানি বেশি রয়েছে বলে ব্যবস্থাপক জানান। তবে লেকে আরো বেশি পানি বৃদ্ধির আশঙ্কা রয়েছে। পানি বাড়লে স্পিল দিয়ে আরো বেশি পরিমাণে পানি ছাড়া হবে বলেও তিনি জানান। লেকের অতিরিক্ত পানি কর্ণফুলী নদীতে ফেলা হচ্ছে। এর ফলে কাপ্তাই উপজেলার নিম্নাঞ্চলসহ রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, বোয়ালখালী উপজেলার নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এদিকে ভারি বৃষ্টির কারণে বিভিন্ন স্থানে পাহাড় ধস বৃদ্ধি পেয়েছে। কাপ্তাইঘাঘড়ারাঙামাটি সড়কের বিভিন্ন স্থানে ধস নামায় যান বাহন চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। কাপ্তাই উপজেলার বরইছড়ি, শিলছড়ি, চিৎমরম, ব্যাংছড়ি, কাপ্তাই নতুন বাজার, ঢাকাইয়া কলোনী, কেপিএম টিলা ইত্যাদি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বসবাসকারী শতশত পরিবার চরম সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় রয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরে যাবার জন্য প্রশাসন থেকে বারবার অনুরোধ জানানো হচ্ছে। তবে প্রশাসনের অনুরোধে এখন পর্যন্ত কেউ সাড়া দেয়নি বলে সূত্রে জানা যায়।

LEAVE A REPLY