হংকংসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের ১৫ টি দেশ এবং সুইজারল্যান্ডেও কীটনাশকের ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদানে দূষিত ডিম পাওয়া গেছে। ইউরোপীয় কমিশন একথা জানিয়েছে। বিষাক্ত ডিম ছড়িয়ে যাওয়া ইইউ দেশগুলো হচ্ছে যুক্তরাজ্য, সুইডেন, অস্ট্রিয়া, আয়ারল্যান্ড, ইতালি, লুক্সেমবার্গ, পোল্যান্ড, রুমানিয়া, োভেনিয়া, োভাকিয়া এবং ডেনমার্ক। আর ইইউয়ের বাইরের দেশ হিসাবে সুইজারল্যান্ডও এ ডিম কেলেঙ্কারিতে পড়েছে। ওদিকে হংকংয়েও বিষাক্ত ডিম পাওয়া যাওয়াই এই প্রথবারের মত ইউরোপের বাইরেও দূষিত ডিম কেলেঙ্কারির বিষয়টি নজরে এল। খবর বিডিনিউজের।

২৬ সেপ্টেম্বরে ইউরোপীয় কমিশন বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রী এবং ব্যবসা পরিচালনাকারীদের সঙ্গে বৈঠক করবে। দূষিত ডিমের বিষয়ে বেলজিয়াম ও ডাচ কর্তৃপক্ষ কতদিন ধরে জানত তা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। সম্প্রতি নেদারল্যান্ডস থেকে আমদানি করা ডিমে ফিপ্রোনিল নামে একটি রাসায়নিক উপাদান পাওয়া গেছে। এ রাসায়নিক মানবদেহে প্রবেশ করলে কিডনি, লিভার ও থাইরয়েড গ্ল্যান্ড মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এটিকে মাঝারি মাত্রার বিষ বলে ঘোষণা করেছে। খামারে পালন করা প্রাণীদের শরীরের উকুন মারতে সাধারণত এই রাসায়নিকটি ব্যবহার করা হয়। গত সপ্তাহে জার্মানির চেইন সুপারমার্কেট ‘অ্যালডি’ তাদের সব দোকানে ডিম বিক্রি বন্ধ করে দিলে বিষয়টি সবার নজরে আসে। এরপর বেলজিয়ামের খাদ্য নিরাপত্তা সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা জুনের শুরুর দিকেই এ বিষয়ে তথ্য পেয়েছিল। কিন্তু তদন্তে নিশ্চিত হওয়ার জন্য তখনই বিষয়টি জনসম্মুখে প্রকাশ করা হয়নি। এ ঘটনা নিয়ে ইউরোপ জুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ইউরোপের ডিম রপ্তানিকারী সবচেয়ে বড় দেশ নেদারল্যান্ডস। ইউরোপের প্রায় সব দেশই নেদারল্যান্ডস থেকে ডিম আমদানি করে। বেলজিয়াম ছড়াও যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও জার্মানিতে আমদানি করা ডিমে ফিপ্রোনিলের উপস্থিতি দেখা গেছে। যে কারণে ওই তিন দেশের সুপারশপগুলো থেকে বিপুল পরিমাণ ডিম সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY